আষাঢ়ের এক রাতে – হালিমা খাতুন

আষাঢ়ের এক রাতে
– হালিমা খাতুন

একবার দাদার সঙ্গে মাছ ধরতে গিয়ে আবু বিশাল একটা বোয়াল মাছ ধরেছিল। খালি আষাঢ় মাস। ঝরঝর বৃষ্টি পড়ছিল থেকে থেকে। আর বিদ্যুতের ঝলক আকাশের ওপরে সােনার দাগ কেটে পালিয়ে যাচ্ছিল মাঝে মাঝে। যাবায় সময় মেঘের আড়াল থেকে তবলার শব্দ শুনিয়ে দিচ্ছিল। আবুর যে বয়স তাতে তার বর্ষার রাতে মনোবিলে মাছ ধরতে যাবার কথা নয়। কারণ বয়স তার মােটে দশ। বড়ো ভাইয়েরা তাকে কােনাে সময় সঙ্গে নিতে চায় না। বােয়াল মাছ ধরার দিনও দাদা সাজেল ও তার বন্ধুরা একেবারেই জানতে পারেনি যে ছোট্ট তাদের সঙ্গে যাচ্ছে। বলে-কয়ে যেতে চাইলে দাদারা ওকে সঙ্গে নেবে না। তাই বেচারা আবু চুপিচুপি গিয়ে নৌকার খােলের মধ্যে ঢুকে লুকিয়ে ছিল এবং সেখানে সে ঘুমিয়ে পড়েছিল।

বর্ষাকাল মানে আষাঢ় এলেই মৌরিবিলে প্রচুর মাছ পড়ে। বােয়াল, পাঙ্গাস থেকে শুরু করে ট্যাংরা, পুঁটি, পারশে, বেলে সবই পাওয়া যেত। আবুর বড়াে ভাই সাজেদের মাছ ধরার নেশা খুব । অনেকবার সে বড়াে বড়াে মাছ ধরেছে। এবারও দুই বন্ধু বিপুল আর বায়েজিদকে নিয়ে সে মাছ ধরার প্ল্যান করেছিল। তারপর সব গােছগাছ করে বাড়ির নৌকাটা নিয়ে মৌরিবিলের পথে রওনা হলো। সঙ্গে নিল কয়েক রকম জাল, হারিকেন, মাছ আনার বড়াে বড়াে ‘খালুই’। আর নিল রাতের খাবার। নৌকা বাইবে কিষান তিনু। দরকার হলে এরাও হাত লাগাবে। অতিরিক্ত দুটো বৈঠাও সঙ্গে করে নিল তারা।

ওদিকে আবু ছটফট করছে কী করে সে ওদের সঙ্গে যাবে। বিপুল ও বায়েজিদকে নিয়ে সাজেদ যখন নৌকায় মৌরিবিলে যাবার পাকাপাকি প্ল্যান করছিল তখন আবু শুনে মনে মনে ঠিক করে ফেলল যে সে ওদের সঙ্গে যাবে। তাতে যা হয় হবে। আবুর এই গােপন প্ল্যান সাজেদরা কিছুই জানতে পারেনি। আকাশে মেঘ। তাই তারা সন্ধ্যার আগেই বেরিয়ে পড়ল। মাছ ধরা হবে রাতে। হারিকেনের আলাে দেখলে মাছেরা কেমন যেন রাতকানা হয়ে যায়। তখন মাছশিকারিরা জাল দিয়ে ধরে ফেলে সেই পথভােলা মাছগুলােকে।

কিছুদূর যাবার পর ঝরঝর করে বৃষ্টি নামল। ওরা তিনজন ছাতা মাথায় দিল। মাথাল মাথায় তিনু নৌকার হাল ধরে বসে রইল। সন্ধ্যা হলাে। বৃষ্টি থামল। হারিকেন জ্বালাল ওরা। একটু পরেই হারিকেন নিবু নিবু হয়ে এল। সাজেদ হারিকেনটা নাড়িয়ে দেখে তেল নেই একটুও তাতে। নৌকার খােলের মধ্যে কেরােসিন তেলের বােতল। পাটাতনের তক্তা তুলে দেখে সেখানে ছােটো মতাে কে যেন শুয়ে আছে। সাজেদ চেঁচিয়ে উঠল –

: এই বিপুল। এই বায়েজিদ। দ্যাখ এখানে কে যেন শুয়ে আছে।

: কে আবার নৌকার খােলের মধ্যে শুতে যাবে। বােধহয় ধানের বস্তা। কিষানেরা নামাতে ভুলে গেছে। ‘না, বস্তা না। এই কে তুই? কে? কে?’- বলে সাজেদ শােয়া ব্যক্তিকে ঠেলা দিল।



আবু তখন হুড়মুড় করে উঠে বসে চোখ ডলতে ডলতে বলল, আমি আবু। বলেই সে কেঁদে দিল। সাজেদ বিস্মিত হয়ে বলল, “আবু তুই এখানে কী করে এলি? আজ তােকে পিটিয়ে ঠান্ডা করব। কাউকে না-বলে চলে এসেছিস। বাড়িতে সবাই তাে কান্নাকাটি শুরু করেছে। তাহলে তাে মাছ ধরা যাবে না। বাড়ি ফিরে যেতে হবে।’ আবু তখন কাঁদতে কাঁদতে বলল, ‘দাদা মেরাে না আমাকে। আমি লুকিয়ে লুকিয়ে তােমাদের সাথে এসেছি মাছ। ধরার জন্য। তবে কালুকে বলে এসেছি কেউ খুঁজলে বলে দিতে।’

: ভালাে কথা। বুদ্ধির কাজ করেছিস। তা পুঁচকে ছেলে তুই কী মাছ ধরবি?

: বড়াে মাছ ধরব দাদা।

: বেশ থাক। বড়াে মাছ তােকেই ধরে না নিয়ে যায় দেখিস। দাদার আশ্বাস পেয়ে আবু মনের সুখে গান ধরল। সাজেদ শুনে বলল, তুই বরং পাটাতনের নিচে তাের জায়গায় গিয়ে ঘুমিয়ে থাক। মাছ এসে তােকে ডেকে তুলবে।

: না আমি ঘুমাব না। বড়াে মাছ ধরব। তােমরা মাছ ধরবে আর আমি ঘুমিয়ে থাকব, তা হবে না! তা হবে না!

: তা তুই মাছ কী দিয়ে ধরবি?

: আমি বড়শি আর টোপ নিয়ে এসেছি।

আবু তখন তার পুটলি থেকে বড়শি আর টোপ বের করে দেখাল। তা দেখে সাজেদ ও তার বন্ধুরা হেসেই গড়াগড়ি। এমন অদ্ভুত বড়শি আর টোপ তারা কখনও দেখেনি। সাজেদ বলল –

: ও, এই তাের বড়শি, কেরােসিনের টিনের আংটা দিয়ে বানানাে! এ দিয়ে মাছ কেন কুমিরও ধরতে পারবি। জলহস্তী তাে আমাদের দেশে নেই। থাকলে তাও তাের এই বড়শি দিয়ে ধরতে পারতিস। তা দেখি তাের টোপ। ও, তেলাপােকা। মাছ কি তেলাপােকা খায়?

: খায় খায়, আমি জানি।

: ঠিক আছে তুই নৌকায় বসে কুমির, জলহস্তী যা খুশি ধর। আমরা পানিতে নেমে জাল ফেলব। দেখিস ঘুমিয়ে পডিস না যেন। আর তিনু ভাই তুমি ওকে দেখ। আমরা চললাম। দেরি হয়ে গেল অনেক। আর দেরি করলে মাছ পাওয়া যাবে না। তাের জন্য খালি খালি সময় নষ্ট হলাে। বলে কয়ে এলে কী হতাে?

আবু কোনাে জবাব না-দিয়ে চুপ করে রইল। একা নৌকায় থাকতে পেরে আবুর খুব আনন্দ হলাে। সে তাড়াতাড়ি মাছ ধরার সরঞ্জাম বের করল। তার দুটো বড়শিতে তেলাপােকার টোপ গেঁথে পানিতে ছুড়ে দিল। তারপর বড়শির দড়ি নৌকার গলুইয়ের সঙ্গে জড়িয়ে বেঁধে বসে রইল। অন্ধকার চারদিক। মাঝে মাঝে বিদ্যুৎ চমকাচ্ছে।

আবুর মনে খালি একটাই ভয়। বড়শিতে মাছ ধরা পড়বে কি না। এত কষ্ট করে লুকিয়ে এসে যদি মাছ না-পায় তাহলে তাে সবাই খেপাবে। বড়শির দড়ির সঙ্গে কয়েকটা জোনাকি পলিথিনের থলের মধ্যে ভরে ফাতনার মতাে বেঁধে দিয়েছিল। সেই জোনাকি ফাতনার দিকে সে চেয়ে বসেছিল। সুবােধ কাকার কাছে সে শুনেছিল যে বােয়াল মাছ তেলাপােকা ভালােবাসে। তাই সে তেলাপােকার টোপ দিয়ে পাঁচটা চিতল মাছ ধরেছিল। সে অবশ্য অনেকদিন আগের কথা। আবু ভাবতে লাগল মাছের কথা। এমন সময় সে দেখল ফাতনাটা শাঁ করে পানির মধ্যে ডুবে গেল। সে তাড়াতাড়ি গলুইয়ের সঙ্গে বাঁধা বড়শির দড়ি ছাড়তে লাগল। ছাড়তে ছাড়তে দড়ি প্রায় শেষ হয়ে গেল। তারপর সে দড়ি টেনে টেনে আবার গলুইয়ের সঙ্গে জড়াতে লাগল। প্রথমে দড়িতে ভার লাগল না। তার মনটাই দমে গেল। কিন্তু একটু পরেই দড়িতে ভার বােধ হতে লাগল আর খুব টানাটানি শুরু হয়ে গেল। এমন সময় বৃষ্টি নামল।



তিনু হাল ধরে বসে ছিল। আবু তিনুকে প্রাণপণে ডাকতে লাগল, তিনু ভাই তিনু ভাই। বড়াে মাছ, শিগগির আস। তিনু বলল-

: ধুর পাগল। এই বিলে বড়াে মাছ কোথা থেকে আসবে। খাল, বিল তাে এখন মরেই গেছে। আগের দিন হলে কথা ছিল।

: না বড়াে মাছ ধরেছি। তুমি এসাে তিনু ভাই। আমার হাত কেটে যাচ্ছে।

তিনু তখন এগিয়ে এসে বড়শির দড়ি ধরল। তারা দুজনে ধরে দড়ি জড়াতে লাগল হালের খুঁটির সঙ্গে। জড়াতে জড়াতে ওরা দুজন একদম ক্লান্ত হয়ে গেল। বৃষ্টি তখনও ঝরছে। ওরা ভিজে একাকার। কিন্তু সেদিকে খেয়াল না-করে ওরা বড়শির দড়ি টেনে যেতে লাগল। টানতে টানতে শেষে একটা হ্যাচকা টান দিতে বড়াে কী যেন একটা নৌকার খােলের মধ্যে দড়াম করে এসে পড়ল। আর এলােপাথাড়ি লাফালাফি করতে লাগল।

তাতে নৌকা প্রায় ডুবে যাবার মতাে হলাে। জোরে বিদ্যুৎ চমকাল। ওরা সেই আলােতেই দেখল বড়াে আকারের একটা বােয়াল মাছ, প্রায় আবুর সমান। বােয়াল লাফাতে লাগল। তিনু তখন খােলের তলা থেকে একটা বস্তা এনে। বােয়ালের গায়ে চাপা দিল। খানিকক্ষণ ধস্তাধস্তি করে বােয়াল শান্ত হলাে। আবুর খুশির নাচ তখন কে দেখে!

এমন সময় সাজেদরা ফিরে এল। আজ তাদের জালে পুঁটি ছাড়া কিছুই ধরা পড়েনি। তাই রাগ করে তারা তাড়াতাড়ি চলে এসেছে। এসেই দেখে আবুর বিশাল বােয়াল। দেখে তাদের বিশ্বাস হতে চায় না। সাজেদ বলল, ‘এই আবু, অত বড়াে বােয়াল কোথা থেকে এল?’ আবু বলল, ‘পানি থেকে। আর আমি ধরেছি!